January 26, 2021, 1:49 am

শিরোনাম :
ঝিনাইদহ জেলা রিপোর্টাস ইউনিটের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ফ্যামিলি মেডিসিন এবং জেনারেল প্র‍্যাকটিসকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ না দিলে স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়ন সম্ভব নয় ঠাকুরগাঁও গড়েয়ার স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহায়তায় রিক্সা ও ভ্যান শ্রমিকদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ রাণীনগরে সিমেন্ট বোঝাই ট্রাকের ধাক্কায় সাইকেল আরোহী নিহত বোনের কান্না থামাতে দা দিয়ে কোপ মারে বড বোন, ছোট বোনের মৃত্যু! ঠাকুরগাঁওয়ে কে এম বি ব্রিক ভাটায় মোবাইল কোর্ট,১ লাখ টাকা জরিমানা ঠাকুরগাঁওয়ে বাস্কেটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন ও শীতবস্ত্র বিতরণ আলীকদমে ভূমিহীন ও গৃহহীন ৫০ পরিবারকে জমি ও গৃহ প্রদান নওগাঁয় পিসরেটের অস্থায়ী কর্মচারীদের চাকুরী স্থায়ী করণের দাবিতে কর্ম বিরতী ও স্মারকলিপি প্রদান ঠাকুরগাঁওয়ে ঘর পেল গৃহহীনরা
পেকুয়ায় মাদ্রাসা ছাত্র আরমানকে বাঁচাতে সাহায্যের প্রয়োজন

পেকুয়ায় মাদ্রাসা ছাত্র আরমানকে বাঁচাতে সাহায্যের প্রয়োজন

পেকুয়া প্রতিনিধি:
পেকুয়ায় মাদ্রাসায় অধ্যয়নরত মো: আরমান (১৩) বাঁচতে চান। জটিল দুরারোগ্য ক্যান্সার আক্রান্ত কোমলমতি ওই শিক্ষার্থীর জীবনপ্রদীপ বাঁচাতে প্রয়োজন উন্নত চিকিৎসা। কিন্তু অর্থাভাবে দরিদ্র পরিবারের মেধাবী ওই ছাত্র এখন মৃত্যুর সন্ধিক্ষনে। ১ বছর আগে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হন। মাদ্রাসা থেকে বাড়ি ফেরার পথে চট্টগ্রামের পটিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় পতিত হয়। সে সময় থেকে তার একটি পায়ের গোঁড়ালিতে আঘাতপ্রাপ্ত হন। আঘাতের ক্ষত ক্রমশ: বাড়তে থাকে। ক্ষত আস্তে আস্তে বিস্তৃত হয়। দুর্ঘটনার সময়ের আঘাতের ওই ক্ষতটি তার জন্য কাল হয়েছে। অনেক জায়গায় চিকিৎসা নিয়েছে। তবে বর্তমানে পায়ের অবস্থা অবনতির দিকে। পায়ের গোঁড়ালিসহ নিচের অংশটুকু এখন পঁচন ধরেছে। বক্ষব্যাধি ও অর্থোপেডিক্স বিভাগের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা পরামর্শ দিয়েছেন আরমানের ক্ষতের অবস্থা জটিল পর্যায়ে গেছে। বর্তমানে দুর্ঘটনায় আহত ক্ষতটি ক্যান্সারে পরিনত হয়। তাকে উন্নত চিকিৎসা দিতে হবে দ্রæত সময়ে। না হলে ওই ক্ষতটি সমস্ত শরীরে ছড়িয়ে পড়বে। সুত্র জানায়, মোহাম্মদ আরমান (১৩) পেকুয়া উপজেলার উজানটিয়া ইউনিয়নের ঠান্ডারপাড়ার মো: কামালের ছেলে। স্থানীয়রা জানান, মো: আরমান মাদ্রাসায় অধ্যয়নরত ছাত্র। চট্টগ্রাম জেলার পটিয়ায় একটি হেফজখানায় অধ্যয়ন করছে। বাড়ি ফেরার পথে সড়কে দুর্ঘটনায় তার এমন পরিনতি হয়েছে। মো: আরমানের মা হাছিনা বেগম জানান, আমার ছেলের অবস্থা জটিল। ১৮ পারা হেফজ শেষ করেছে। আমাদের ইচ্ছা ছিল গর্বের ধনটুকুকে আরবী শিক্ষায় শিক্ষিত করব। কোরআনের হাফেজ করব। একটি দুর্ঘটনায় আমার ছেলের জীবনকে বিপন্ন করে দিয়েছে। আমরা চিকিৎসার জন্য বিপুল টাকা ব্যয় করেছি। নিজের মাথাগোঁজার ঠাইটুকু বসতভিটা বিক্রি করে ছেলেকে চিকিৎসা করিয়েছি। আমার স্বামী বিদেশ ছিল। ধার কর্জ নিয়ে প্রবাসে গিয়েছে। সম্প্রতি সেখানে ভিসা জটিলতায় আটক রয়েছে। একদিকে ছেলের অবস্থা করুন। অপরদিকে স্বামীও বিদেশে কঠিন অবস্থায়। নেই যোগাযোগও। এমতাবস্থায় ছেলের চিকিৎসার জন্য অর্থ সংকট আরও ঘনীভূত হয়েছে। আমার ছেলে বাঁচতে চান। পৃথিবীর মায়া মমতা আলো বাতাসে অন্যদের মত বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখেন। কিন্তু অর্থ ও চিকিৎসা সংকটে একটি জীবন থেমে যাবে। আমি সকলকে আহবান করছি আপনারা এগিয়ে আসুন। মানবতা ও উদার ব্যক্তিবর্গ সাহায্যের হাত বাড়ালে একটি ক্ষুদ্র শিশু ফিরে পেতে পারেন জীবনের আলো। তাই সমাজ, রাস্ট্র ও বিবেকবান ব্যক্তিবর্গ আমার ছেলেকে বাঁচাতে অর্থের যোগান দেয়ার জন্য বিনীত প্রার্থনা করছি। কেউ যদি চিকিৎসার জন্য টাকা পাঠাতে চান ০১৮৩৭-৫৮৪১৯৭ মুঠোফোন নাম্বারে পাঠাতে পারেন। এটি আমাদের ব্যক্তিগত বিকাশ নাম্বার।

নিউজটি শেয়ার করুন

Comments are closed.




© All rights reserved © 2020 districtnews24.Com
Design & Developed BY districtnews24.Com