November 15, 2019, 8:00 pm

শিরোনাম :
ফাইতংয়ে বর্ণাঢ্য আয়োজনে যুবলীগের ৪৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত খুলনায় ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনে জনপ্রতি বরাদ্দ ৩ টাকারও কম! ৬৪ টাকায় একটি পেঁয়াজ কিনলেন ছাত্রলীগ নেতা! ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের রায় মুসলিম বিশ্ব ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে : আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরী বরগুনায় ডাকাত দলের ২ সদস্য গ্রেফতার পাবনার চাটমোহরে পুকুর থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার গুরুদাসপুরে জেএসসি পরীক্ষার্থীকে অপহরন! ঢাকায় ‘মুজিববর্ষ’ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মূল বক্তব্য দেবেন মোদি বাবরি মসজিদের পরিবর্তে বিকল্প জমি নেয়া হবে না: আরশাদ মাদানী পেকুয়া উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতির নেতৃত্বে পরিবেশ-প্রতিবেশ বিপন্ন!
ঠাকুরগাঁওয়ে শুরু হয়েছে আগাম ধান কাটার মহা উৎস

ঠাকুরগাঁওয়ে শুরু হয়েছে আগাম ধান কাটার মহা উৎস

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধিঃ
ঠাকুরগাঁওয়ে শুরু হয়েছে আগাম ধান কাটার মহা উৎস। ফলন আশানুরূপ পেয়ে আনন্দে ধান সংগ্রহ করছেন কৃষকরা। বর্তমানে বাজারে ধানের দাম ভালো না কিন্তু ধানের খড় বিক্রি করার কারণে কৃষকরা অনেক খুশি।

কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা যায়, ঠাকুরগাঁওয়ে ৫টি উপজেলায় আমন মৌসুমে ১ লাখ ৩২ হাজার ৬শ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন জাতের আমন ধানের চাষ হয়েছে। এর মধ্যে দেশীয় উদ্ভাবিত স্বল্প জীবনকালের ধান বিনা-৭, ব্রি ধান ৩৩ ও বিভিন্ন প্রকার উচ্চ ফলনশীল হাইব্রিড ধানের চাষ হয়েছে মোট আবাদের শতকরা ১০ ভাগ অর্থাত্ ১৩ হাজার ২৬০ হেক্টর।

ইতোমধ্যে এসব আগাম ধান কাটা শুরু হয়েছে। অন্য বছরের তুলনায় এ বছর লাভবান হতে পারছেন বলে কৃষকরা জানিয়েছে। কিন্তু বাজারে ধানের দাম নাই।

ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার হরিহরপুর গ্রামের কৃষক কৃষ্ণ,প্রদিপ কুমার বলেন, এ মৌসুমে ৫ বিঘা জমিতে বিনা-৭ জাতের ধানের চাষ করেছি। কাটা-মারাই শেষের দিকে। বিঘা প্রতি ২২ থেকে ২৩ মণ ফলন হচ্ছে। গত বছরও একই জমিতে একই জাতের ধানের চাষ করে ফলন কম পেয়ে ৯শ টাকা দরে বস্তা (৭৫ কেজি) বিক্রি করেছিলাম।

তবে এ বছর ফলন কিছুটা বেশি, দামও অনেক কম। বর্মান ৮২০-৮৫০ টাকা দরে বস্তা বিক্রি করছি। তাছাড়া এবছর গবাদিপশু খাদ্য খড়ের চাহিদাও বেশি, বাড়িতে ভাল দামে বিক্রি হচ্ছে খড়। ফুল সিজনে (মৌসুমে) শ্রমিকের সমস্যা থাকলেও এখন শ্রমিকের সমস্যা অনেকটা কম।

ফকদনপুর পটুয়া এলাকার কৃষক অতুল বলেন, ৪ একর জমিতে আগাম জাত বিনা-৭ ধানের চাষ করেছি। শ্রমিক দিয়ে ধান কেটে (খড়সহ ধান) শুকাতে দিছি জমিতে। দিন কয়েক পরে ধান বাড়িতে নিয়ে যাব আর জমিতে আলুর চাষ করবো। তিনি আরো বলেন, বর্তমানে বাজারে ধানের যে দাম কম আছে। কম দামে ধান বিক্রি করলে আমাদের লজ হবে।

ঠাকুরগাঁও কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আফতাব বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় চাষীরা ভাল ফলন পাচ্ছেন। বর্তমানে বাজারে ধানের দাম কম।কৃষকরা জুদি দেরিতে ধান বিক্রি করে তাহলে দাম পাবে। স্বল্প সময়ে আগাম ধান বাজারে বিক্রি করে কৃষকরা তাদের পরিবারের বিভিন্ন ধরনের চাহিদা পূরণ করতে পারছে।

তাছাড়া আগাম ধান কাটার পর আবার একই জমিতে আগাম গোল আলু ও তৈল জাতীয় ফসল সরিষার চাষ করা যাবে বলে আমি আশা করছি।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2019 districtnews24.Com
Design & Developed BY districtnews24.Com